ঢাকা বৃহঃস্পতিবার, ২১শে নভেম্বর ২০১৯, ৮ই অগ্রহায়ণ ১৪২৬


বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যা : চার্জশিট প্রস্তুত আসামি ২৪ জন


৫ নভেম্বর ২০১৯ ০৪:০৯

আপডেট:
২১ নভেম্বর ২০১৯ ২৩:৩০

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় ২৪ জনকে আসামি করে চার্জশিট প্রস্তুত করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) তদন্তকারী কর্মকর্তা। চার্জশিটে সাক্ষী হিসেবে প্রায় ৩০ জনের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ও ডিএমপি কমিশনারকে অবহিত করে দুয়েক দিনের মধ্যেই চার্জশিট আদালতে দাখিল করা হবে। গতকাল ডিএমপির একাধিক কর্মকর্তা দেশ রপান্তরকে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

তারা জানান, ফাহাদ হত্যা মামলার আসামি হিসেবে ২১ জনকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। যাদের মধ্যে এজাহারভুক্ত ১৬ আসামি ও এজাহারবহির্ভূত ৫ আসামি রয়েছেন। তাদের প্রত্যেকেই ডিবির হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদে আবরার ফাহাদ হত্যাকা-ের কথা স্বীকার করেছেন। কার কী ভূমিকা সবিস্তারে বর্ণনা করেছেন। এদের মধ্যে আট আসামি ১৬৪ ধারায় আদালতের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দিতে ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের পুঙ্খানুপুঙ্খ বর্ণনা উঠে এসেছে। বেশ কয়েকজন সাক্ষীও আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (ডিবি) ও আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার প্রধান তদারকি কর্মকর্তা মাহবুব আলম দেশ রূপান্তরকে বলেন, সম্ভাব্য ২৪ জনকে আসামি করে চার্জশিট প্রস্তুত করা হয়েছে। বিষয়টি পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করে আদালতে দাখিল করা হবে। তিনি বলেন, ফাহাদ হত্যা মামলায় সাক্ষী হিসেবে অনেকে ব্যক্তিকেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে ঘটনার বিবরণ ও তাদের নিজ নিজ ভূমিকার বিস্তারিত বিবরণ নেওয়া হয়েছে। মামলার বিচারকাজে প্রাসঙ্গিকতা বিবেচনায় যাদের সাক্ষ্য কার্যকর বলে মনে হয়েছে তাদেরই সাক্ষী করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে সাক্ষীর সংখ্যা প্রায় ৩০ জন।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট অন্য এক কর্মকর্তা জানান, এ মামলার আসামি হিসেবে যারা গ্রেপ্তার হয়েছেন তাদের প্রত্যেককেই চার্জশিটভুক্ত আসামি করা হয়েছে। এছাড়া মামলার এজাহারভুক্ত সব আসামির নাম এ চার্জশিটে রাখা হয়েছে। চার্জশিটের বিষয়ে আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী ও ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলামকে অবহিত করে দুয়েক দিনের মধ্যে তা আদালতে জমা দেওয়া হবে। তিনি আরও বলেন, গ্রেপ্তার ২১ জনই চার্জশিটভুক্ত আসামি হবেন। এরা হলেন মেহেদী হাসান রাসেল, মুহতাসিম ফুয়াদ, অনিক সরকার, মেহেদী হাসান রবিন, ইফতি মোশাররফ সকাল, মনিরুজ্জামান মনির, মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন, মাজেদুর রহমান, মোজাহিদুল ইসলাম, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভীর, হোসেন মোহাম্মদ তোহা, এসএম মাহমুদ সেতু, শামীম বিল্লাহ, মোয়াজ আবু হুরায়রা, মুনতাসির আলম জেমি, মিজানুর রহমান মিজান, এ এস এম নাজমুস সাদাত, ইশতিয়াক আহম্মেদ মুন্না, অমিত সাহা, শামসুল আরেফিন রাফাত ও আকাশ হোসেন।

পলাতক তিন আসামি : মামলার এজাহারভুক্ত তিন আসামি জিসান, মোর্শেদ ও তানিম এখনো পালিয়ে রয়েছেন। তারা চার্জশিটভুক্ত আসামি হচ্ছেন।